خبرگزاری شبستان

دوشنبه ۲۹ بهمن ۱۳۹۷

الاثنين ١٣ جمادى الثانية ١٤٤٠

Monday, February 18, 2019

বিজ্ঞাপন হার

ইরাকের রাষ্ট্রদূতকে ইরানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে তলব

ইরাকের দক্ষিণাঞ্চলীয় বসরা শহরের ইরানি কনস্যুলেটে দুর্বৃত্তদের হামলার প্রতিবাদ জানাতে আজ (শনিবার) ভোরে তেহরানে নিযুক্ত ইরাকি রাষ্ট্রদূতকে ইরানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে তলব করা হয়েছে। এ সময় ইরানি কনস্যুলেটের নিরাপত্তা রক্ষার ব্যাপারে ইরাকি নিরাপত্তা কর্মীদের অবহেলার প্রতিবাদ জানানো হয়।

নির্বাচিত সংবাদ

মতামতজরিপ  :   Tuesday, July 7, 2015 নির্বাচিত সংবাদ : 21225

কেন হযরত আলীকে(আ.) আবু তোরাব বলা হয়?
চিন্তা ও দর্শন বিভাগ: রাসূল(সা.) বলেছেন, যখন কিয়ামত অনুষ্ঠিত হবে তখন হযরত আলীর(আ.) শিয়াদেরকে এত বেশী সওয়াব দান করা হবে যে কাফেররা বলবে, আমরাও যদি মাটি তথা হযরত আলীর(আ.) অনুসারী হতাম।

কেন হযরত আলীকে(আ.) আবু তোরাব বলা হয়?

চিন্তা ও দর্শন বিভাগ: রাসূল(সা.) বলেছেন, যখন কিয়ামত অনুষ্ঠিত হবে তখন হযরত আলীর(আ.) শিয়াদেরকে এত বেশী সওয়াব দান করা হবে যে কাফেররা বলবে, আমরাও যদি মাটি তথা হযরত আলীর(আ.) অনুসারী হতাম।

শাবিস্তান বার্তা সংস্থার রিপোর্ট: বিভিন্ন হাদিস থেকে প্রমাণিত হয় যে, রাসূল(সা.) বিভিন্ন উপলক্ষে এবং বারংবার হযরত আলীকে(আ.) আবু তোরাব বলে ডাকতেন এবং এই উপাধি তিনি নিজেই হযরত আলীকে(আ.) দিয়ে ছিলেন।

এ সম্পর্কে আমরা দুটি হাদিস আপনাদের সামনে তুলে ধরছি:

১। দ্বিতীয় হিজরির ১৫ই জামাদিউল আওয়াল রাসূল(সা.) তার কিছূ সাহাবাদেরকে নিয়ে কুরাইশদের কাফেলার উদ্দেশ্যে রওনা হন এবং আশিরা নামক স্থানে পূছান কিন্তু তারপরও কাফেলার কোন সন্ধান মেলে নি। আশিরায় থাকা অবস্থায় একদির রাসলূ(সা.) হযরত আলী(আ.) এবং আম্মারের কাছে গিয়ে দেখলেন তারা শুয়ে আছেন আর তাদের মুখে ধুলা পড়েছে।

রাসূল(সা.) তাদের দু,জনকে আদর করে ডেকে। হযরত আলীকে বলনে, হে আবু তোরাব! আমি তোমাকে দু’টি অতি খারাপ ও মন্দ লোকের সংবাদ দিতে চাই। একজন হচ্ছে কাদার বিন সালেফ(আহমির)যে হযরত সালেহর উটকে হত্যা করেছিল। আরেকজন হচ্ছে সে, যে তোমার ঘাড়ে তলোয়ারের আঘাত করবে এবং তোমার মাথঅর রক্তে দাড়িকে রঞ্জিত করবে।

এর পর থেকে সকলে হযরত আলীকে(আ.) আবু তোরাব বলে ডাকতেন। এবং তিনিও এই উপাধিটি অনেক পছন্দ করতেন কেননা রাসূল(সা.) তাকে এই‌ নামে ডেকেছিলেন।

২। ইবনে আবআস বলেন, মহানবী হযরত মুহাম্মাদ(সা.) এ জন্য হযরত আলীকে আবু তোরাব বলতেন, কেননা রাসূল(সা.)-এর পর হযরত আলীই হচ্ছেন পৃথিবীর মালিক এবং পৃথিবীতে আল্লাহর হুজ্জাত। আর তার কারণেই পৃথিবী টিকে আছে। এ জন্যই হযরত আলীকে(আ.) আবু তোরাব বলা হয়।

পবিত্র কোরআনে বলা হয়েছে: কাফেররা কিয়ামতের দিন বলবে, আমরা যদি মাটি হতে পারতাম। অর্থাত আমরা যদি আলীর(আ.) অুনসারী শিয়া হতে পারতাম। আর আলী যেহেতু শিয়াদের নেতা তাই আলীকে আবু তোরাব বলা হয়।

৩। একদা হযরত আলী(আ.) মাটিতে শুয়ে ছিলেন, রাসূল(সা.) তাকে উঠিয়ে তার ধুলা ঝেড়ে দিয়ে বলেন: হে আবু তোরাব! ওঠ, আমার পিতা মাতা তোমার জন্য উতসর্গ হোক।

470750

মন্তব্য

বইপরিচিতি  :
 ভিডিও সংবাদ:
অন্যান্যলিংক :
আমাদের সম্পর্কে

মন্তব্য