خبرگزاری شبستان

جمعه ۳۰ فروردین ۱۳۹۸

الجمعة ١٤ شعبان ١٤٤٠

Friday, April 19, 2019

বিজ্ঞাপন হার

ইরাকের রাষ্ট্রদূতকে ইরানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে তলব

ইরাকের দক্ষিণাঞ্চলীয় বসরা শহরের ইরানি কনস্যুলেটে দুর্বৃত্তদের হামলার প্রতিবাদ জানাতে আজ (শনিবার) ভোরে তেহরানে নিযুক্ত ইরাকি রাষ্ট্রদূতকে ইরানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে তলব করা হয়েছে। এ সময় ইরানি কনস্যুলেটের নিরাপত্তা রক্ষার ব্যাপারে ইরাকি নিরাপত্তা কর্মীদের অবহেলার প্রতিবাদ জানানো হয়।

নির্বাচিত সংবাদ

মতামতজরিপ  :   Saturday, July 16, 2016 নির্বাচিত সংবাদ : 24097

ইসলাম ধর্মে মাহদাভিয়াত এবং রাজয়াতের গুরুত্ব
আন্তর্জাতিক বিভাগ: রাজয়াতের অর্থ হচ্ছে ইমাম মাহধীর(আ.) আবির্ভারেব পর কিছু খালেস মু’মিন বান্দা এবং কিছু কাফের ও মুনাফিককে আল্লাহ পূণরায় দুনিয়াতে পাঠাবেন।

শাবিস্তান বার্তা সংস্থার রিপোর্ট: আল্লামা মাজলিসী এবং সাইয়্যেদ মোর্ত্তাজা বর্ণনা করেছেন যে, শেষ জামানায় এবং ইমাম মাহদীর(আ.) আবির্ভারেব পর মহান আল্লাহ একদল খালেস মু’মিন বান্দাকে এবং কিছূ কাফের ও মুনাফিককে পুণরঅয় দুনিয়াতে পাঠাবেন। আর এর নামই হচ্ছে রাজয়াত। ঐ সময় মুমিনরা পুরস্কৃত হবে এবং ইমাম মাহদীর(আ.) সাথে তাকতে পারবেন। আর কাফের ও মুনাফিকদেরকে শান্তি দিবেন।

ইমাম জাফর সাদিক(আ.) বলেছেন:  «ایّام الله»আইয়্যামুল্লাহ তথা আল্লাহর দিন হচ্ছে তিনটি যথা: ১- ইমাম মাহদীর(আ.) আবির্ভাবের দিন, ২- রাজয়াতের দিন এবং ৩- কিয়ামতের দিন।

ইমাম জাফর সাদিক(আ.) আরও বলেছেন: যারা রাজয়াতে বিশ্বাস করে না তারা আমাদের শিয়া তথঅ অনুসারী নয়।

হযরত ঈসার(আ.) আবির্ভাব হবে, রাজয়াত হবে না। কেননা তাদেরই কেবল রাজয়াত হবে যারা পূর্বে মারা গিয়েছে এবং আল্লাহর ইচ্ছায় আবার তাদেরকে জীবিত করে দুনিয়াতে পাঠানো হবে। পবিত্র কোরআনের শিক্ষা অনুসারে প্রতিটি মুসলামনাই বিশ্বাস করে যে হযরত ঈসাকে(আ.) হত্যা করা হয় নি বরং মহান আল্লাহ তাকে আসমানে উঠিয়ে নিয়ে গেছেন।

ইমাম রেজা(আ.) বলেছেন: রাজয়াত একটি সত্য বিষয়। প্রতিটি নবীর উম্মতের মধ্যেও রাজয়াত ছিল। পবিত্র কোরআনেরও এই বিষয়ের উপর আলোকপাত করা হেয়ছে। আর রাসূল(সা.) বলেছেন; অন্য উম্মতের মধ্যে যা ছিল আমার উম্মতে তা ঘটবে। সুতরাং রাজয়াত তথা প্রত্যাবর্তন একটি সত্য ও অবধারিত বিষয়।

শিয়া মাজহাবের প্রখ্যাত সকল মনীষী যেমন হাসান বিন সুলাইমান কুমি(রহ.), আল্লামা হিল্লি, শেখ মুফিদ, আলামুল হুদা, সাইয়্যেদ মুর্তাজা এবং আল্লামা বাকের মাজলিসী বলেছেন: রাজয়াত একটি অবধারিত বিষয় এবং এই বিষয়ে সকল শিয়া আলেমদের ইজমা রয়েছে।

হাসান বিন সুলাইমান কুমি (রহ.) তার বাসায়েরুদ দারাজাত গ্রন্থে বর্ণনা করেছেন: মহান আল্লাহ রাসূলকে(সা.) মিরাজে নিয়ে তাকে সকল গোপন বিষয় সম্পর্কে অবগত করেন এবং বলেন, হে মুহাম্মাদ! সর্ব প্রথম ইমাম হচ্ছে আলী এবং আমি সবার কাছ থেকে তার জন্য বায়াত নিয়েছি। এবং সর্বশেষ যার রুহ কবজ করা হবে সে হচ্ছে আলী। এই হাদিস থেকে রাজয়াত তথা প্রত্যাবর্তনকে বোঝা যায়।

ইমাম জাফর সাদিক(আ.) বলেছেন: মহান আল্লাহ সকল নবীদের কাছ থেকে প্রতিশ্রুত নিয়েছেন। আর তা হল ইমাম মাহদীকে সাহায্য করার প্রতিশ্রিুতি।

আল্লাহর প্রেরিত সকল নবী পূনরায় দুনিয়াতে ফিরে আসবেন। আর শুধুমাত্র ইমাম হুসাইনের সাথে ফিরে আসবেন ৭০ জন নবী। আর ইামম মাহদীর(আ.) সাথে ফিরবেন হযরত ঈসা, খিজিরসহ আরও অনেক নবী।

558776

মন্তব্য

বইপরিচিতি  :
 ভিডিও সংবাদ:
অন্যান্যলিংক :
আমাদের সম্পর্কে

মন্তব্য