خبرگزاری شبستان

جمعه ۲۶ آیان ۱۳۹۶

الجمعة ٢٨ صفر ١٤٣٩

Friday, November 17, 2017

বিজ্ঞাপন হার

রোহিঙ্গা নারীদের ধর্ষণ করেছে মিয়ানমারের সেনারা: মানবাধিকার সংগঠন

আন্তর্জাতিক বিভাগ: রোহিঙ্গাদের জাতিগতভাবে নির্মূল করতে মিয়ানমারের সেনাবাহিনীর সদস্যরা তাদের নারী ও মেয়েদের ধর্ষণ করেছে। তাদের ওপর যৌন সহিংসতাও চালানো হয়েছে। আজ সোমবার আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংগঠন হিউম্যান রাইটস ওয়াচের (এইচআরডব্লিউ) এক প্রতিবেদনে এ কথা বলা হয়েছে।

নির্বাচিত সংবাদ

মতামতজরিপ  :   Monday, August 28, 2017 নির্বাচিত সংবাদ : 27197

ইমাম মাহদীর জন্য প্রতীক্ষা হচ্ছে সর্বোত্তম আমল
মাহদাভিয়াত বিভাগ: ইমাম মাহদীর আবির্ভাবের জন্য প্রতীক্ষা একটি আমল, কেননা হাদিসে বর্নিত হয়েছে «أفضَلُ الأعمال» উত্তম আমল বা কাজ। «أفضَلُ الحالات» উত্তম অবস্থা বলা হয় নি। যে ব্যক্তি মেহমানের অপেক্ষায় আছে সে হাতগুটিয়ে বসে থাকতে পারে না। অনুরূপভাবে যে কৃষক ভাল ফসলের অপেক্ষায় থাকে সেও কখনোই বসে থাকতে পারে না।

শাবিস্তান বার্তা সংস্থার রিপোর্ট: পবিত্র কোরআনের সূরা আ’রাফের ৭১ নং অঅয়াতে বলা হয়েছে: قَالَ قَدْ وَقَعَ عَلَيْكُم مِّن رَّبِّكُمْ رِجْسٌ وَغَضَبٌ أَتُجَادِلُونَنِي فِي أَسْمَاء سَمَّيْتُمُوهَا أَنتُمْ وَآبَآؤكُم مَّا نَزَّلَ اللّهُ بِهَا مِن سُلْطَانٍ فَانتَظِرُواْ إِنِّي مَعَكُم مِّنَ الْمُنتَظِرِينَ

 সে বললঃ অবধারিত হয়ে গেছে তোমাদের উপর তোমাদের প্রতিপালকের পক্ষ থেকে শাস্তি ও ক্রোধ। আমার সাথে (মূর্তিগুলোর) ঐসব নাম সম্পর্কে কেন তর্ক করছ, যেগুলো তোমরা ও তোমাদের বাপ-দাদারা রেখেছে। অথচ আল্লাহ এদের সম্পর্কে কোন প্রমাণ পাঠাননি। অতএব (খোদায়ী শাস্তির জন্য) অপেক্ষা কর। আমিও তোমাদের সাথে অপেক্ষা করছি।

হযরত হুদ (আ.) অনেক ধৈর্য ধরে আন্তরিক চিত্তে ও বিনম্রভাবে আদ জাতিকে আল্লাহর ইবাদতের দিকে আহ্বান জানানো সত্ত্বেও তারা সত্যকে মেনে নেয়নি। বরং বলেছে যে, তোমার কথিত পরকালীন খোদায়ী শাস্তি যদি সত্যই হয়ে থাকে তাহলে এ পৃথিবীতেই ওই শাস্তির একটা অংশ আমাদের দেখাও এবং আমাদের ওপর ওই শাস্তি নাজেল কর!

এই আয়াতে হযরত হুদ (আ.) তার জাতির নাফরমান লোকদের বলছেন, তোমরা অহংকার ও গোড়ামির বশে যে শাস্তি দেখার জিদ করেছ তা এই দুনিয়াতেই উপভোগ করবে। তোমরা এই শাস্তির জন্যই অপেক্ষা করছ, আর আমিও তা দেখার জন্য অপেক্ষা করছি। কারণ, তোমরা আসল খোদার ইবাদত না করে যে কাঠ ও পাথরগুলোকে খোদা বলে উপাসনা করছ তা খেয়ালিপনা মাত্র। তোমরাই এগুলোর মধ্যে খোদায়ী নাম আরোপ করেছ, কিন্তু এসবের কোনো খোদায়ী মহত্ত্ব নেই। এদের না আছে খোদায়ী শক্তি, খোদায়ী জ্ঞান, খোদায়ী দয়া ও প্রজ্ঞা।

অর্থহীন ও গুরুত্বহীন নামগুলো শুনতে সুন্দর লাগলেও সেগুলো পরিহার করা উচিত। বরং আমাদের উচিত সত্য সন্ধানী হওয়া।

মানুষের চিন্তা ও বিশ্বাসের ভিত্তি যুক্তি-প্রমাণ হওয়া উচিত, অন্ধ অনুকরণ ও বিদ্বেষ নয়।

দোয়া ইফতিতায় বলা হয়েছে: «اللّهُمَ إنّا نَشکُوا إلیکَ؛ হে আল্লাহ! আমরা জালিমদের অত্যাচারে অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছে আমরা আপনার কাছে নালিশ জানাচ্ছি। অর্থাত আমরা জালিম শাসকদেরকে মানি না আমরা ন্যায়পরায়ন শাসক চাই। দায়ার অপর অংশে বলা হচ্ছে: «إنّا نَرغَبُ الَیکَ فِی دوُلَةٍ الکَریمَةٍ» আমরা আপনার কাছে ইমাম মাহদীর ন্যায়পরায়ন ও মর্যাদাবান রাষ্ট্র কামনা করছি।

651915

মন্তব্য

বইপরিচিতি  :
 ভিডিও সংবাদ:
অন্যান্যলিংক :
আমাদের সম্পর্কে

মন্তব্য