خبرگزاری شبستان

سه شنبه ۲۱ آذر ۱۳۹۶

الثلاثاء ٢٤ ربيع الأوّل ١٤٣٩

Tuesday, December 12, 2017

বিজ্ঞাপন হার

ইমাম মাহদীর(আ.) জ্ঞানের প্রকৃতি ও উতস

মাহদাবিয়াত বিভাগ: ইমাম জাফর সাদিক (আ.) বলেছেন: জ্ঞান-বিজ্ঞানের ২৭টি অক্ষর রয়েছে নবীগণ যা এনেছেন তা হচ্ছে মাত্র ২টি অক্ষর এবং জনগণও এই দুই অক্ষরের বেশী কিছু জানে না। যখন আমাদের কায়েম কিয়াম করবে বাকি ২৫টি অক্ষর বের করবেন এবং মানুষের মধ্যে তা প্রচার করবেন। অতঃপর ওই দু’অক্ষরকেও তার সাথে যোগ করে মানুষের মাঝে প্রচার করবেন।

নির্বাচিত সংবাদ

মতামতজরিপ  :   Thursday, October 12, 2017 নির্বাচিত সংবাদ : 27488

ইমাম মাহদীর প্রতীক্ষাকারীরা কখনোই সংগ্রামে ক্লান্ত হয় না
মাহদাভিয়াত বিভাগ: সুখের সাগরে গা ভাসিয়ে দেয়া ইমাম মাহদীর অনুসারীদের কাজ নয়। তার কখনোই উদাসিন ও দায়িত্বহীনতামূল কাজ করে না। তার সর্বদা জিহাদ ও সংগ্রামের জন্য প্রস্তুত থাকে।

শাবিস্তান বার্তা সংস্থার রিপোর্ট: পবিত্র কোরআনেও মহান আল্লাহ বসে থাকা লোকদের থেকে মুজাহিদদের বেশী মর্যাদা দান করেছেন।

সূরা নিসার ৯৫ নম্বর আয়াতে বলা হয়েছে:

لَا يَسْتَوِي الْقَاعِدُونَ مِنَ الْمُؤْمِنِينَ غَيْرُ أُولِي الضَّرَرِ وَالْمُجَاهِدُونَ فِي سَبِيلِ اللَّهِ بِأَمْوَالِهِمْ وَأَنْفُسِهِمْ فَضَّلَ اللَّهُ الْمُجَاهِدِينَ بِأَمْوَالِهِمْ وَأَنْفُسِهِمْ عَلَى الْقَاعِدِينَ دَرَجَةً وَكُلًّا وَعَدَ اللَّهُ الْحُسْنَى وَفَضَّلَ اللَّهُ الْمُجَاهِدِينَ عَلَى الْقَاعِدِينَ أَجْرًا عَظِيمًا

মুমিনদের মধ্যে যারা কোন সঙ্গত কারণ না থাকা সত্ত্বেও জিহাদে অংশ নেয় না এবং যারা জান-মাল দিয়ে আল্লাহর পথে জিহাদ করে তারা সমান নয়৷ আল্লাহতায়ালা, যারা জিহাদে অংশ নেয়নি তাদের তুলনায় জিহাদকারীদের মর্যাদা বাড়িয়ে দিয়েছেন, যদিও আল্লাহ প্রত্যেককেই পুরস্কারের প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন৷ মহা পুরস্কারের ক্ষেত্রে আল্লাহ মুজাহিদদেরকে যারা জিহাদে অংশ নেয়নি, তাদের ওপর শ্রেষ্ঠত্ব দিয়েছেন৷

এই আয়াতে শত্রুদের মোকাবেলায় জিহাদে সক্রিয়ভাবে অংশ নেয়ার জন্য মুসলমানদেরকে আহ্বান জানানো হয়েছে৷ ভীতু ও সুবিধাবাদী মুসলমানদেরকে জিহাদে অংশ নিতে উত্সাবহিত করার লক্ষ্যে এটা স্মরণ করিয়ে দেয়া হয়েছে যে, যারা জিহাদে অংশ না নিয়ে শুধু নামাজ ও দোয়ার ওপর নির্ভর করে এবং যারা জিহাদে অংশ নিয়েছে; তাদের মর্যাদা সমান নয়৷ এরপর আল্লাহ বলেছেন, মুজাহিদদের মর্যাদা অন্যদের চেয়ে বেশী৷ এই আয়াতেরই শেষে আবার বলা হচ্ছে, শুধু মর্যাদাই নয় তাদের জন্য মহা পুরস্কার অপেক্ষা করছে৷ আর ঐ পুরস্কারের সাথে রয়েছে আল্লাহর বিশেষ দয়া, রহমত ও ভালোবাসা৷

যুদ্ধ বা আন্দোলনের ক্ষেত্রে প্রতিরোধ ও দৃঢ়তা অব্যাহত রাখা জরুরী। তালুত ও জালুতের ঘটনায় দেখা গেছে, অত্যাচারী তাগুতি সরকারের বিরুদ্ধে সংগ্রামে শ্লোগান দেয়ার জন্য বহু লোক থাকা সত্ত্বেও খুব কম সংখ্যক লোকই শত্রুর বিরুদ্ধে রূখে দাঁড়িয়ে ছিল।

সূরা বাকারার ২৫০তম আয়াতে বলা হয়েছে: وَلَمَّا بَرَزُوا لِجَالُوتَ وَجُنُودِهِ قَالُوا رَبَّنَا أَفْرِغْ عَلَيْنَا صَبْرًا وَثَبِّتْ أَقْدَامَنَا وَانْصُرْنَا عَلَى الْقَوْمِ الْكَافِرِينَ

তারা (ঈমানদাররা) যখন যুদ্ধ ক্ষেত্রে জালুত ও তার সেনাবাহিনীর মুখোমুখী হলো,তখন তারা বলল : হে আমাদের প্রতিপালক ! আমাদেরকে ধৈর্য ও দৃঢ়তা দান কর এবং অবিশ্বাসী দলের উপর আমাদেরকে বিজয়ী কর।

ঈমানদার বা বিশ্বাসীদের লক্ষ্য হলো, মিথ্যার ওপর সত্যের বিজয়, এক জাতির ওপর অন্য জাতির কর্তৃত্ব প্রতিষ্ঠা নয়। তাই তালুতের সঙ্গীরা অবিশ্বাসীদের ওপর বিজয় প্রার্থনা করে।

মন্তব্য

বইপরিচিতি  :
 ভিডিও সংবাদ:
অন্যান্যলিংক :
আমাদের সম্পর্কে

মন্তব্য