خبرگزاری شبستان

سه شنبه ۲۲ آیان ۱۳۹۷

الثلاثاء ٥ ربيع الأوّل ١٤٤٠

Tuesday, November 13, 2018

বিজ্ঞাপন হার

ইরাকের রাষ্ট্রদূতকে ইরানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে তলব

ইরাকের দক্ষিণাঞ্চলীয় বসরা শহরের ইরানি কনস্যুলেটে দুর্বৃত্তদের হামলার প্রতিবাদ জানাতে আজ (শনিবার) ভোরে তেহরানে নিযুক্ত ইরাকি রাষ্ট্রদূতকে ইরানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে তলব করা হয়েছে। এ সময় ইরানি কনস্যুলেটের নিরাপত্তা রক্ষার ব্যাপারে ইরাকি নিরাপত্তা কর্মীদের অবহেলার প্রতিবাদ জানানো হয়।

নির্বাচিত সংবাদ

মতামতজরিপ  :   Thursday, November 16, 2017 নির্বাচিত সংবাদ : 27738

ইসলাভীতি বৃদ্ধির কারণে "চেক প্রজাতন্ত্র" থেকে মুসলমানরা দেশ ত্যাগ করছে
আন্তর্জাতিক বিভাগ: চেক প্রজাতন্ত্রের অনেক মুসলমান ইসলামোফোবিয়া বৃদ্ধির ভয়ে দেশ ত্যাগ করছেন। চেক প্রজাতন্ত্রের রাজনৈতিক অঙ্গনে সাম্প্রতিক সময়ে ইসলামবিদ্বেষীদের দ্রুত উত্থান হচ্ছে, যার ফল ভোগ করছে দেশটির ক্ষুদ্র মুসলিম কমিউনিটি।

ইসলাভীতি বৃদ্ধির কারণে "চেক প্রজাতন্ত্র" থেকে মুসলমানরা দেশ ত্যাগ করছে      

আন্তর্জাতিক বিভাগ: চেক প্রজাতন্ত্রের অনেক মুসলমান ইসলামোফোবিয়া বৃদ্ধির ভয়ে দেশ ত্যাগ করছেন। চেক প্রজাতন্ত্রের রাজনৈতিক অঙ্গনে সাম্প্রতিক সময়ে ইসলামবিদ্বেষীদের দ্রুত উত্থান হচ্ছে, যার ফল ভোগ করছে দেশটির ক্ষুদ্র মুসলিম কমিউনিটি।

শাবিস্তান বার্তা সংস্থার রিপোর্ট: প্রতিনিয়তই বর্ণবাদী ও বিদ্বেষমূলক হামলার শিকার হচ্ছেন চেক প্রজাতন্ত্রের সংখ্যালঘু মুসলিম সম্প্রদায়। মধ্য ইউরোপের এই দেশটিতে জনসংখ্যার প্রতি হাজারে মুসলিমদের সংখ্যা দুইজনেরও কম। জনসংখ্যার এই ক্ষুদ্র অংশটি দেশটির প্রতিটি ক্ষেত্রে শিকার হচ্ছেন অবহেলা ও বৈষম্যের। দেশটিতে ইসলামের নামও মুছে ফেলতে চাইছেন কট্টর ডানপন্থীরা।

আলজাজিরার এক রিপোর্টে বলা হয়েছে এই উত্থানে নেতৃত্ব দিচ্ছেন চেক-জাপানিজ উদ্যোক্তা ও রাজনীতিক তোমিও ওকামুরা। ইসলাম ও সন্ত্রাসবাদ পরস্পরের সাথে যুক্ত বলে প্রচারণা চালাচ্ছেন এই ইসলামবিদ্বেষী নেতা। তার একমাত্র নীতি হলো ‘ইসলামকে না বলুন, সন্ত্রাসকে না বলুন। গত অক্টোবরের নির্বাচনে দলটির অভূতপূর্ব উত্থান হয়েছে ইসলামবিদ্বেষকে পুঁজি করে। নির্বাচনে তাদের মূল এজেন্ডা ছিল ‘চেক প্রজাতন্ত্র থেকে ইসলাম দূর করা। আর এই এজেন্ডা নিয়েই পার্লামেন্টে তৃতীয় বৃহত্তম দলে পরিণত হয়েছে। এই সুযোগ নিয়ে ওকামুরা দেশটিতে ছড়াচ্ছেন ইসলামবিদ্বেষ।

গত জুনে আন্দ্রেজ বেবিস সাংবাদিকদের বলেন: পূর্বপুরুষদের সংস্কৃতি টিকিয়ে রাখতে আমাদের লড়াই করতে হবে। বেলজিয়ামের উদারনীতিকে কটাক্ষ করে তিনি বলেন, ভবিষ্যতে ব্রাসেলসে যদি বেলজিয়ানদের চেয়ে মুসলিমদের সংখ্যা বেশি হয়, সেটি তাদের সমস্যা। আমাদের দেশে তা হতে দেবো না। এখানে কারা বসবাস করবে সে ব্যাপারে তারা কথা বলতে পারে না। রাজনীতিকদের এসব ভাষা ও মনোভাবই দেশটিতে ইসলামবিদ্বেষ জাগিয়ে তুলেছে। এখন সেখানে সবচেয়ে বেশি আলোচিত বিষয় হচ্ছে এটি। ইউরোপের আর কোনো দেশে যা এতটা আক্রমণাত্মক নয়।

আরো কয়েকটি ধর্মের মতো ইসলাম সরকারিভাবে স্বীকৃত ধর্ম চেক প্রজাতন্ত্রে, তবে এই ধর্মের অনুসারীদের পূর্ণমাত্রায় স্বাধীনতা ভোগ করার সুযোগ হয় না। মুসলিমদের স্কুল-মাদরাসা স্থাপন কিংবা জনসমাবেশ স্থলে ধর্মীয় অনুষ্ঠান করার অনুমতি নেই।

669895

মন্তব্য

বইপরিচিতি  :
 ভিডিও সংবাদ:
অন্যান্যলিংক :
আমাদের সম্পর্কে

মন্তব্য