خبرگزاری شبستان

جمعه ۳۱ فروردین ۱۳۹۷

الجمعة ٥ شعبان ١٤٣٩

Friday, April 20, 2018

বিজ্ঞাপন হার

কেন ইমাম হুসাইনকে হেদায়েতের আলো এবং মুক্তির তরী বলা হয়?

মাহদাভিয়াত বিভাগ: চতুর্থ হিজরির তৃতীয় শা’বান মানবজাতি ও বিশেষ করে, ইসলামের ইতিহাসের এক অনন্য ও অফুরন্ত খুশির দিন। কারণ, এই দিনে জন্ম নিয়েছিলেন বিশ্বনবী হযরত মুহাম্মাদ (সা.)’র প্রাণপ্রিয় দ্বিতীয় নাতি তথা বেহেশতী নারীদের নেত্রী হযরত ফাতিমা (সা.) ও বিশ্বাসীদের নেতা তথা আমীরুল মুমিনিন হযরত আলী (আ.)’র সুযোগ্য দ্বিতীয় পুত্র এবং ইসলামের চরম দূর্দিনের ত্রাণকর্তা ও শহীদদের নেতা হযরত ইমাম হুসাইন (আ.)।

নির্বাচিত সংবাদ

মতামতজরিপ  :   Saturday, December 30, 2017 নির্বাচিত সংবাদ : 28050

আমলের প্রতিদান
মায়ারেফ বিভাগ: আমিরুল মু’মিনিন আলী (আ.) রাসূলের (সা.) ঘোষিত ও মনোনীত খলিফা হিসেবে মানব জাতীর খোদায়ী পথপ্রদর্শক ও মাসুম ইমাম। আমরা এ মহান ইমামের (আ.) দিকনির্দেশনার মাধ্যমে সঠিক ও সত্য পথের দিশা পেতে পারি।

আমলের প্রতিদান

মায়ারেফ বিভাগ: আমিরুল মু’মিনিন আলী (আ.) রাসূলের (সা.) ঘোষিত ও মনোনীত খলিফা হিসেবে মানব জাতীর খোদায়ী পথপ্রদর্শক ও মাসুম ইমাম। আমরা এ মহান ইমামের (আ.) দিকনির্দেশনার মাধ্যমে সঠিক ও সত্য পথের দিশা পেতে পারি।

শাবিস্তান বার্তা সংস্থার রিপোর্ট: আমিরুল মু’মিনিন আলী (আ.) এ পৃথিবীতে মানুষের বদান্যতা ও অন্যের প্রতি দয়া এবং যে কোন উপকারের প্রতিদান সম্পর্কে বলেছেন যে, এক্ষেত্রে অতি দ্রুত এবং তরিৎ গতিতে মানুষ প্রতিফল নিজের চোখেই দেখতে পেয়ে থাকে। আমরা এখন এ সম্পর্কে ইমামের (আ.) মুখ থেকে বর্ণিত হাদীসটি এবং সেটির অনুবাদ পাঠকদের উদ্দেশ্যে তুলে ধরছি-

وَ قَالَ [عليه السلام] وَ الصَّدَقَةُ دَوَاءٌ مُنْجِحٌ وَ أَعْمَالُ الْعِبَادِ فِى عَاجِلِهِمْ نُصْبُ أَعْيُنِهِمْ فِى آجَالِهِمْ.

অর্থাৎ বদান্যতা হচ্ছে কার্যকর চিকিৎসা; এ পৃথিবীর জীবনের যে কোন আমলের প্রতিফল মানুষ পরকালে নিজের চোখের সামনে দেখতে পাবে। (সূত্র: নাহজুল বালাগা, হিকমত নং ৭)

এ হাদীস থেকে বুঝা যায় মানুষ এ পৃথিবীতে অসহায় ও নি:স্ব লোকদের সহায়তায় যে সব দান ও সহায়তা করবে, সেগুলোর উত্তম প্রতিদান পরকালে আল্লাহর নিকট থেকে গ্রহণ করবে। সুতরাং পৃথিবীতে মানুষের কোন উত্তম আমলই বৃথা যাবে না; বরং সেগুলোর যথাযথ প্রতিদান গ্রহণ করবে।

মন্তব্য

বইপরিচিতি  :
 ভিডিও সংবাদ:
অন্যান্যলিংক :
আমাদের সম্পর্কে

মন্তব্য