خبرگزاری شبستان

جمعه ۳۱ فروردین ۱۳۹۷

الجمعة ٥ شعبان ١٤٣٩

Friday, April 20, 2018

বিজ্ঞাপন হার

কেন ইমাম হুসাইনকে হেদায়েতের আলো এবং মুক্তির তরী বলা হয়?

মাহদাভিয়াত বিভাগ: চতুর্থ হিজরির তৃতীয় শা’বান মানবজাতি ও বিশেষ করে, ইসলামের ইতিহাসের এক অনন্য ও অফুরন্ত খুশির দিন। কারণ, এই দিনে জন্ম নিয়েছিলেন বিশ্বনবী হযরত মুহাম্মাদ (সা.)’র প্রাণপ্রিয় দ্বিতীয় নাতি তথা বেহেশতী নারীদের নেত্রী হযরত ফাতিমা (সা.) ও বিশ্বাসীদের নেতা তথা আমীরুল মুমিনিন হযরত আলী (আ.)’র সুযোগ্য দ্বিতীয় পুত্র এবং ইসলামের চরম দূর্দিনের ত্রাণকর্তা ও শহীদদের নেতা হযরত ইমাম হুসাইন (আ.)।

নির্বাচিত সংবাদ

মতামতজরিপ  :   Wednesday, January 03, 2018 নির্বাচিত সংবাদ : 28084

৩ ছেলের মুক্তির দাবিতে অনশন ধর্মঘটে প্রভাবশালী প্রিন্স তালাল
তিন ছেলের মুক্তির দাবিতে অনশন পালন করছেন সৌদি আরবের প্রভাবশালী প্রিন্স তালাল বিন আব্দুল আজিজ। গত মাসের শুরুতে তার তিন ছেলে আটক হওয়ার পর থেকেই তিনি অনশন শুরু করেন।

৩ ছেলের মুক্তির দাবিতে অনশন ধর্মঘটে প্রভাবশালী প্রিন্স তালাল

 

তিন ছেলের মুক্তির দাবিতে অনশন পালন করছেন সৌদি আরবের প্রভাবশালী প্রিন্স তালাল বিন আব্দুল আজিজ। গত মাসের শুরুতে তার তিন ছেলে আটক হওয়ার পর থেকেই তিনি অনশন শুরু করেন।

সৌদি আরবের বিভিন্ন সূত্র জানিয়েছে, অনশনরত ৮৬ বছর বয়সী প্রিন্স তালাল অসুস্থ হয়ে পড়েছেন এবং বর্তমানে তাকে রিয়াদের কিং ফয়সাল হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। হাসপাতালের চিকিৎসকরা বিশেষ নলের মাধ্যমে তাকে খাবার খাওয়ানোর চেষ্টা করে যাচ্ছেন।

তার আটক তিন ছেলের অন্যতম হচ্ছেন ওয়ালিদ বিন তালাল। তিনি সৌদি আরবের সবচেয়ে ধনী ব্যক্তি হিসেবে পরিচিত। ওয়ালিদের মুক্তির জন্য কর্তৃপক্ষ বিপুল অংকের অর্থ দাবি করেছে বলে খবর পাওয়া গেছে। ওয়ালিদসহ তালালের তিন ছেলেকেই রিয়াদের রিটজ-কার্লটন হোটেলে আটক রাখা হয়েছে। ওই হোটেলকে এখন বিশ্বের সবচেয়ে বিলাসবহুল কারাগার হিসেবে গণ্য করা হয়। কারণ এ পর্যন্ত আটক বহু সৌদি প্রিন্স ও ব্যবসায়ীকে সেখানে রাখা হয়েছে। সেখানে আটক ব্যক্তিদের ওপর নির্মম নির্যাতনও করা হচ্ছে বলে খবর বেরিয়েছে। 

গত ৬ ডিসেম্বর সৌদি আরবের অ্যাটর্নি জেনারেল ঘোষণা করেছেন, দুর্নীতি বিরোধী কমিটি এ পর্যন্ত ৩২০ জনকে ডেকে পাঠিয়েছে।

গত ৪ নভেম্বর সৌদি সরকার বেশ কয়েকজন প্রিন্সকে আটকের পর দাবি করে, দুর্নীতি বিরোধী অভিযানের অংশ হিসেবে এ পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে। তবে বিশ্লেষকরা বলছেন, সৌদি যুবরাজ মোহাম্মাদ বিন সালমানের ক্ষমতা পাকাপোক্ত করতেই ওইসব প্রিন্সকে আটক করা হয়েছে।

মন্তব্য

বইপরিচিতি  :
 ভিডিও সংবাদ:
অন্যান্যলিংক :
আমাদের সম্পর্কে

মন্তব্য