خبرگزاری شبستان

شنبه ۴ اسفند ۱۳۹۷

السبت ١٨ جمادى الثانية ١٤٤٠

Saturday, February 23, 2019

বিজ্ঞাপন হার

ইরাকের রাষ্ট্রদূতকে ইরানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে তলব

ইরাকের দক্ষিণাঞ্চলীয় বসরা শহরের ইরানি কনস্যুলেটে দুর্বৃত্তদের হামলার প্রতিবাদ জানাতে আজ (শনিবার) ভোরে তেহরানে নিযুক্ত ইরাকি রাষ্ট্রদূতকে ইরানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে তলব করা হয়েছে। এ সময় ইরানি কনস্যুলেটের নিরাপত্তা রক্ষার ব্যাপারে ইরাকি নিরাপত্তা কর্মীদের অবহেলার প্রতিবাদ জানানো হয়।

নির্বাচিত সংবাদ

মতামতজরিপ  :   Friday, February 2, 2018 নির্বাচিত সংবাদ : 28327

ইরানে ইসলামি বিপ্লবের ৩৯তম বিজয় বার্ষিকী
রাজনীতি বিভাগ: সারা ইরানে আজ ১লা ফেব্রুয়ারী থেকে শুরু হয়েছে ইসলামি বিপ্লবের ৩৯তম বিজয় বার্ষিকীর ১০ দিনব্যাপী অনুষ্ঠান। ১৯৭৯ সালের ১ ফেব্রুয়ারি ইসলামি বিপ্লবের রূপকার ইমাম খোমেনী (রহ.) ১৪ বছরেরও বেশি সময় নির্বাসিত জীবন শেষে দেশে ফিরে এসেছিলেন এবং এর ১০ দিন পর ১১ ফেব্রুয়ারি বিপ্লবের চূড়ান্ত বিজয় হয়েছিল। এই ১০ দিনকে ইরানে ‘আলোকোজ্জ্বল ১০ প্রভাত’ নামে অভিহিত করা হয়।

ইরানে ইসলামি বিপ্লবের ৩৯তম বিজয় বার্ষিকী

 

রাজনীতি বিভাগ: সারা ইরানে আজ ১লা ফেব্রুয়ারী থেকে শুরু হয়েছে ইসলামি বিপ্লবের ৩৯তম বিজয় বার্ষিকীর ১০ দিনব্যাপী অনুষ্ঠান। ১৯৭৯ সালের ১ ফেব্রুয়ারি ইসলামি বিপ্লবের রূপকার ইমাম খোমেনী (রহ.) ১৪ বছরেরও বেশি সময় নির্বাসিত জীবন শেষে দেশে ফিরে এসেছিলেন এবং এর ১০ দিন পর ১১ ফেব্রুয়ারি বিপ্লবের চূড়ান্ত বিজয় হয়েছিল। এই ১০ দিনকে ইরানে ‘আলোকোজ্জ্বল ১০ প্রভাত’ নামে অভিহিত করা হয়।

ইসলামি বিপ্লবের বিজয়ের মাধ্যমে ইরানের মাটি থেকে চিরতরে মুছে গিয়েছিল ২,৫০০ বছরের রাজতান্ত্রিক শাসনব্যবস্থা। উৎখাত হয়েছিল আমেরিকার পদলেহী রেজা শাহ সরকার।

ইমামের স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে আজ স্থানীয় সময় (বৃহস্পতিবার) সকাল ৯টা ২৭ মিনিট থেকে আলোকোজ্জ্বল ১০ প্রভাতের অনুষ্ঠান শুরু হয়। ১৯৭৯ সালের এ দিনে সকাল ৯টা ২৭ মিনিটে ইমামের প্রত্যাবর্তনের স্মরণে এ সময়টিতে আজকের অনুষ্ঠান শুরু করা হয়।

রাজধানী তেহরানের অদূরে ইমাম খোমেনী (রহ.)’র মাজার প্রাঙ্গণে সমবেত হন ইরানের সর্বস্তরের হাজার হাজার মানুষ। তারা তাদের প্রাণপ্রিয় এ মরহুম নেতার প্রতি শ্রদ্ধা জানানোর পাশাপাশি তার প্রতি আনুগত্যের শপথ পুনর্ব্যক্ত করেন। একইসঙ্গে ইরানের প্রতিটি শহরে একই সময়ে আলোকোজ্জ্বল ১০ প্রভাতের অনুষ্ঠান শুরু হয়।

১৯৭৯ সালের ১ ফেব্রুয়ারি স্বদেশ প্রত্যাবর্তনের আগে ইমাম খোমেনী (রহ.) ১৪ বছরেরও বেশি সময় নির্বাসিত জীবন কাটান। এর বেশিরভাগ সময় কাটে ইরাকের পবিত্র নাজাফ নগরীতে। এরপর তুরস্ক হয়ে তিনি ফ্রান্সে যান এবং ইরানের তৎকালীন স্বৈরাচারী শাহ দেশ থেকে পালিয়ে গেলে তিনি প্যারিস থেকে দেশে ফেরেন।

সেদিন ইরানে রেজা শাহের মনোনীত সরকার ক্ষমতায় থাকার পরও ইমাম খোমেনী (রহ.)কে স্বাগত জানাতে অন্তত ২০ লাখ লোক তেহরানে সমবেত হয়। তেহরানের মেহরাবাদ বিমানবন্দর থেকে শুরু করে বেহেশতে জাহরা পর্যন্ত লোকে লোকারণ্য হয়ে যায়। ইমাম দেশে ফিরে বেহেশতে জাহরায় প্রথম জনতার উদ্দেশে দিকনির্দেশনামূলক ভাষণ দেন এবং সরকার গঠনের ঘোষণা দেন।

ইমামের স্বদেশ প্রত্যাবর্তন ও আলোকোজ্জ্বল ১০ প্রভাত উপলক্ষে ইরানের সর্বোচ্চ নেতা আয়াতুল্লাহিল উজমা খামেনেয়ী গতকাল  মরহুম ইমামের মাজার জিয়ারত করেন।

এ ছাড়া, প্রেসিডেন্ট হাসান রুহানি এবং তার মন্ত্রী পরিষদের সদস্যরা ইমামের মাজার জিয়ারত করেন।

মন্তব্য

বইপরিচিতি  :
 ভিডিও সংবাদ:
অন্যান্যলিংক :
আমাদের সম্পর্কে

মন্তব্য