خبرگزاری شبستان

جمعه ۲۳ آذر ۱۳۹۷

الجمعة ٦ ربيع الثاني ١٤٤٠

Friday, December 14, 2018

বিজ্ঞাপন হার

ইরাকের রাষ্ট্রদূতকে ইরানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে তলব

ইরাকের দক্ষিণাঞ্চলীয় বসরা শহরের ইরানি কনস্যুলেটে দুর্বৃত্তদের হামলার প্রতিবাদ জানাতে আজ (শনিবার) ভোরে তেহরানে নিযুক্ত ইরাকি রাষ্ট্রদূতকে ইরানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে তলব করা হয়েছে। এ সময় ইরানি কনস্যুলেটের নিরাপত্তা রক্ষার ব্যাপারে ইরাকি নিরাপত্তা কর্মীদের অবহেলার প্রতিবাদ জানানো হয়।

নির্বাচিত সংবাদ

মতামতজরিপ  :   Monday, March 12, 2018 নির্বাচিত সংবাদ : 28594

দক্ষিণ কোরিয়ার মুসলমানদের জন্য প্রার্থনা হল তৈরি
মাহদাভিয়াত বিভাগ: দক্ষিণ কোরিয়া সিউলের পর্যটন এলাকায় মুসলমানদের জন্য প্রার্থনা হল বা নামাজ খানা তৈরি করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। নামাজ খানা তথা প্রার্থনা হলসমূহ প্রধান পর্যটন গন্তব্যস্থলগুলির মধ্যে স্থাপন করা হবে।

দক্ষিণ কোরিয়ার মুসলমানদের জন্য প্রার্থনা হল তৈরি             

মাহদাভিয়াত বিভাগ:  দক্ষিণ কোরিয়া সিউলের পর্যটন এলাকায় মুসলমানদের জন্য প্রার্থনা হল বা নামাজ খানা তৈরি করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। নামাজ খানা তথা প্রার্থনা হলসমূহ প্রধান পর্যটন গন্তব্যস্থলগুলির মধ্যে স্থাপন করা হবে।

শাবিস্তান বার্তা সংস্থার রিপোর্ট: কনফুসীয় ও খ্রিস্টান ধর্মগোষ্ঠীর দেশ হিসেবে পরিচিত দক্ষিণ কোরিয়া। দেশটির মোট জনসংখ্যার ৫২ শতাংশ মানুষ বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বী, ২০ শতাংশ খ্রিস্টান এবং ২৫ শতাংশের বেশি জনসংখ্যা নির্দিষ্ট কোনো ধর্মে বিশ্বাসী নয়।

দেশটিতে ৭০ হাজার মানুষ ইসলাম ধর্মে বিশ্বাসী। আর শ্রমিক হিসেবে দক্ষিণ কোরিয়ায় কর্মরত রয়েছে দেড় লাখ মুসলিম। ১০২৪ খ্রিস্টাব্দ থেকে দক্ষিণ কোরিয়া আরব ধর্ম প্রচারকদের প্রচেষ্টায় ইসলামের প্রচার ও প্রসার শুরু হয়।

মুসলমানদের ধর্ম পালনে দক্ষিণ কোরিয়া রয়েছে ১৭টি মসজিদ। ৬ টি ইসলামিক সেন্টার। আর মসজিদ ছাড়াও দেশটির ১১০টি স্থানে নামাজের ব্যবস্থা রয়েছে।

দক্ষিণ কোরিয়া সরকারের বরাদ্দ দেয়া জমি মসজিদ ও ইসলামিক সেন্টার গড়ে ওঠে ১৯৬৯ সালে। এর এটিই দক্ষিণ কোরিয়ার প্রথম মসজিদ ও ইসলামিক সেন্টার। সিউল কেন্দ্রীয় মসজিদটিই দক্ষিণ কোরিয়ার বুকে ইসলামের ঐতিহ্য বহন করে আছে।

দেশটি অন্যান্য দেশের মতো ইসলাম ও নারীদের জন্য হিজাব বিদ্বেষী নয়। মুসলিম পর্যটকদের জন্য দক্ষিণ কোরিয়া নিরাপদ শহর।

দক্ষিণ কোরিয়ার বাণিজ্য পরিসংখ্যান অনুযায়ী, গত বছর প্রার্থনা হলের সংখ্যা ছিল ৭৮, যার অধিকাংশই বিশ্ববিদ্যালয় এবং হাসপাতালের মধ্যে।

মন্তব্য

বইপরিচিতি  :
 ভিডিও সংবাদ:
অন্যান্যলিংক :
আমাদের সম্পর্কে

মন্তব্য