خبرگزاری شبستان

یکشنبه ۲ اردیبهشت ۱۳۹۷

الأحد ٧ شعبان ١٤٣٩

Sunday, April 22, 2018

নির্বাচিত সংবাদ

মতামতজরিপ  :   Wednesday, March 14, 2018 নির্বাচিত সংবাদ : 28610

আল্লাহ ও রাসূল (সা.) যাদের প্রতি অভিশাপ দেন…
মাহদাভিয়্যাত বিভাগ: পৃথিবীতে এমন কিছু জুলুম ও অবিচার রয়েছে, যেগুলো কখনও ক্ষমাযোগ্য নয়। আর এ সব জুলুমের কারণে সাধারণ মানুষ তো অনেক দূরের কথা স্বয়ং আল্লাহ ও রাসূলও (সা.) অভিশাপ দিয়ে থাকেন।

আল্লাহ ও রাসূল (সা.) যাদের প্রতি অভিশাপ দেন…

 

মাহদাভিয়্যাত বিভাগ: পৃথিবীতে এমন কিছু জুলুম ও অবিচার রয়েছে, যেগুলো কখনও ক্ষমাযোগ্য নয়। আর এ সব জুলুমের কারণে সাধারণ মানুষ তো অনেক দূরের কথা স্বয়ং আল্লাহ ও রাসূলও (সা.) অভিশাপ দিয়ে থাকেন।

শাবিস্তান বার্তা সংস্থার রিপোর্ট: রাসূলের (সা.) আহলে বাইত তথা পবিত্র বংশধর হচ্ছে মানব জাতির হেদায়েত ও দিকনির্দেশনার ক্ষেত্রে নক্ষত্রতুল্য। পবিত্র কোরআন ও হাদীসের বর্ণনা অনুযায়ী তাদের প্রতি ভক্তি ও ভালবাসা নিবেদন এবং তাদের দিকনির্দেশনা যথাযথভাবে মেনে চলা হচ্ছে প্রত্যেক মুসলমানের উপর ফরজ। কিন্তু তদুপরি ইতিহাসের সাক্ষ্য অনুযায়ী একশ্রেণীর ক্ষমতালোভি ও দুনিয়ালোভি ব্যক্তি বিভিন্ন সময়ে রাসূলের (সা.) পবিত্র আহলে বাইতের সাথে মন্দ আচরণ এবং তাদের প্রতি জুলুম ও অবিচার করেছে; আর এ ধরনের জুলুমকারীরা হচ্ছে সবচেয়ে জঘণ্য ব্যক্তি। এমনকি তারা আল্লাহর অভিশাপ ও ক্রোধের শিকার।

ইমাম মাহদী (আ.) বর্ণনা করেন: আমাদের পিতামহ রাসূল (সা.) বলেছেন,

«فمن ظلمنا کان في جملة الظالمين لنا وکانت لعنة الله عليه لقوله عزّ وجلّ «ألا لعنة الله علي الظالمين».

‍‘যারা আমার আহলে বাইতের অধিকার বিনষ্ট করবে এবং তাদের প্রতি জুলুম করবে; তারা আল্লাহ ও নবী-রাসূলগণের লালন বা অভিসম্পদের শিকার হবে।

সূত্র: বিহারুল আনওয়ার, ২৬তম খণ্ড, পৃ.১২

মন্তব্য

বইপরিচিতি  :
 ভিডিও সংবাদ:
অন্যান্যলিংক :
আমাদের সম্পর্কে

মন্তব্য