خبرگزاری شبستان

چهارشنبه ۲ خرداد ۱۳۹۷

الأربعاء ٩ رمضان ١٤٣٩

Wednesday, May 23, 2018

বিজ্ঞাপন হার

ইমাম মাহদীর নামে কোরআন খতম দেয়ার ফজিলত

মাহদাভিয়াত বিভাগ: রমজান মাসের ইফতার, সেহেরি এবং শবে কদরে আমাদের প্রধান দোয়া হচ্ছে ইমাম মাহদীর আবির্ভাবের জন্য দোয়া করা। আমরা যদি এটা করতে পারি তাহলে ইমাম মাহদীর প্রকৃত সৈনিক হতে পারব এবং আমাদের ম্যেধ তার জন্য ত্যাগ স্বীকার করার মনোভাব গড়ে উঠবে।

নির্বাচিত সংবাদ

মতামতজরিপ  :   Sunday, May 06, 2018 নির্বাচিত সংবাদ : 28906

শাবান মাসের সবচেয়ে ফজিলতপূর্ণ মুনাজাত
মায়ারেফ বিভাগ: শাবান মাসের সবচেয়ে ফজিলতপূর্ণ দোয়া ও মুনাজাত হচ্ছে মুনাজাতে শাবানিয়্যাহ। মুনাজাতে শাবানিয়্যাহ মাসুম ইমাম (আ.) থেকে বর্ণিত অন্যতম অর্থবহ ও তাৎপর্যবহ দোয়া। এ দোয়াতে শাবান মাসের ফজিলত ও গুরুত্বের কথা তুলে ধরা হয়েছে। এ মাসকে আল্লাহ অন্যান্য মাসের তুলনায় বিশেষ সম্মান ও মর্যাদায় ভূষিত করেছেন।

শাবান মাসের সবচেয়ে ফজিলতপূর্ণ মুনাজাত

মায়ারেফ বিভাগ: শাবান মাসের সবচেয়ে ফজিলতপূর্ণ দোয়া ও মুনাজাত হচ্ছে মুনাজাতে শাবানিয়্যাহ। মুনাজাতে শাবানিয়্যাহ মাসুম ইমাম (আ.) থেকে বর্ণিত অন্যতম অর্থবহ ও তাৎপর্যবহ দোয়া। এ দোয়াতে শাবান মাসের ফজিলত ও গুরুত্বের কথা তুলে ধরা হয়েছে। এ মাসকে আল্লাহ অন্যান্য মাসের তুলনায় বিশেষ সম্মান ও মর্যাদায় ভূষিত করেছেন।

শাবিস্তান বার্তা সংস্থার রিপোর্ট: যেমনভাবে কিছু কিছু স্থানের বিশেষ ফজিলত দেয়া হয়েছে; আমরা যদি সাধারণ ও মদীনার মসজিদুন্নবীতে (সা.) দু'রাকাত নামায আদায় করি, তাহলে সাধারণ কোন মসজিদে নামায আদায়ের তুলনায় মসজিদুন্নবীতে (সা.) দু'রাকাত নামায আদায় ১০ গুন বেশি সওয়া পাওয়া যাবে।

বিশিষ্ট ইসলামী গবেষক ও চিন্তাবিদ হযরত হুজ্জাতুল ইসলাম ওয়াল মুসলিমিন আলী শাহ আলী জাদেহ সালওয়াতে শাবানিয়্যাহ'র পাঠের গুরুত্বের কথা তুলে ধরে বলেন:  রাসূল (সা.) ও তার পবিত্র বংশধরের প্রতি দরুদ পাঠ মানুষের গুনাহসমূহকে পরিছন্ন করে। এমনকি হাদীসে বর্ণিত হয়েছে যে, কেউ যদি আল্লাহর নিকট প্রার্থনা করে, তাহলে প্রার্থনার শুরু ও শেষে দরুদ শরীফ পাঠ করলে, উক্ত প্রার্থনা আল্লাহর দরবারে কবুল হয়।

তিনি বলেন: মুনাজাতে শাবানিয়্যাহ'র শুরুতে রাসূলের (সা.) আহলে বাইতকে (আ.) শাজারাতুন্নবুয়্যাহ তথা নবুয়্যাতের বৃক্ষ হিসেবে অভিহিত করা হয়েছে। অবস্য এ ধরনের উপমা পবিত্র কোরআনেও বহু আয়াতে বর্ণিত হয়েছে। কালেমায়ে তাইয়েবাহকে সাজারায়ে তাইয়েবাহ তথা পবিত্র বৃক্ষ হিসেবে বর্ণনা করা হয়েছে। সুতরাং হযরত আদম (আ.) থেকে সর্বশেষ নবী ও রাসূলকে (সা.) একটি বৃক্ষের সাথে তুলনা করলে উক্ত বৃক্ষের মূল হলেন রাসূলে খোদা (সা.) অর্থাৎ সমস্ত নবী ও রাসূলের মধ্যে যে সব বৈশিষ্ট্য আছে সেগুলোর সবই হযরত মুহাম্মাদের (সা.) মধ্যে আছে। এ কারণেই হযরত সুলাইমান (আ.) সহ সব নবীর বৈশিষ্ট্যের উত্তরাধিকার হিসেবে হযরত মুহাম্মাদকেই (সা.) উল্লেখ করা হয়েছে।

মন্তব্য

বইপরিচিতি  :
 ভিডিও সংবাদ:
অন্যান্যলিংক :
আমাদের সম্পর্কে

মন্তব্য