خبرگزاری شبستان

چهارشنبه ۲۴ مرداد ۱۳۹۷

الأربعاء ٤ ذو الحجّة ١٤٣٩

Wednesday, August 15, 2018

নির্বাচিত সংবাদ

মতামতজরিপ  :   Sunday, May 20, 2018 নির্বাচিত সংবাদ : 28984

রমজান মাস হচ্ছে দোয়ার মাস
মাহদাভিয়াত বিভাগ: যারা নিরাশ তারা কোন দোয়া করে না কেননা যার কোন আশাই নেই সে আবার কিসের জন্য দোয়া করবে। আর যে দোয়া করে সে আশাবাদি এবং এটাও আশা করে যে তার দোয়া কবুল হবে। দোয়া কুবল হওয়ার প্রতি তার যে আশা এই আশা তাকে আগামীতে চলার জন্য পথ দেখায়।

রমজান মাস হচ্ছে দোয়ার মাস        

মাহদাভিয়াত বিভাগ: যারা নিরাশ তারা কোন দোয়া করে না কেননা যার কোন আশাই নেই সে আবার কিসের জন্য দোয়া করবে। আর যে দোয়া করে সে আশাবাদি এবং এটাও আশা করে যে তার দোয়া কবুল হবে। দোয়া কুবল হওয়ার প্রতি তার যে আশা এই আশা তাকে আগামীতে চলার জন্য পথ দেখায়।

শাবিস্তান বার্তা সংস্থার রিপোর্ট:  রমজান মাসের গুরুত্বকে উপলব্ধি করুন এবং দিনগুলোকে রোজা এবং তারগুলোকে যিকির ও দোয়র মাধ্যমে অতি বাহিত করুন। কেননা এটাই হচ্ছে দোয়ার জন্য উত্তম মাস যদিও সর্বদা দোয়ার মাধ্যমেই আল্লাহর সাথে সম্পর্ক বজায় রাখতে হয়।

সূরা বাকারার ১৮৬ নং আয়াতে বলা হয়েছে: وَإِذَا سَأَلَكَ عِبَادِي عَنِّي فَإِنِّي قَرِيبٌ أُجِيبُ دَعْوَةَ الدَّاعِ إِذَا دَعَانِ فَلْيَسْتَجِيبُواْ لِي وَلْيُؤْمِنُواْ بِي لَعَلَّهُمْ يَرْشُدُونَ

আর যখন আমার বান্দাগণ তোমাকে আমার সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করবে, আমি তো নিশ্চয় নিকটবর্তী। আমি আহ্বানকারীর ডাকে সাড়া দেই, যখন সে আমাকে ডাকে। সুতরাং তারা যেন আমার ডাকে সাড়া দেয় এবং আমার প্রতি ঈমান আনে। আশা করা যায় তারা সঠিক পথে চলবে।

আল্লাহ আমাদের অতি নিকটবর্তী তিনি আমাদের সকল মোনাজাত ও দোয়া শুনতে পান সুতরাং আমরা আল্লাহর উপর বিশ্বাস রাখি এবং দোয়া কবুল হওয়ার ভরসা রাখি বলেই দোয়া করি।

সূরা নিসার ১৪১ নং আয়াতে বর্নিত হয়েছে: এরা এমনি মুনাফেক যারা তোমাদের কল্যাণ-অকল্যাণের প্রতীক্ষায় ওঁৎপেতে থাকে। অতঃপর আল্লাহর ইচ্ছায় তোমাদের যদি কোন বিজয় অর্জিত হয়, তবে তারা বলে, আমরাও কি তোমাদের সাথে ছিলাম না? পক্ষান্তরে কাফেরদের যদি আংশিক বিজয় হয়, তবে বলে, আমরা কি তোমাদেরকে ঘিরে রাখিনি এবং মুসলমানদের কবল থেকে রক্ষা করিনি? সুতরাং আল্লাহ তোমাদের মধ্যে কেয়ামতের দিন মীমাংসা করবেন এবং কিছুতেই আল্লাহ কাফেরদেরকে মুসলমানদের উপর বিজয় দান করবেন না।

রমজান মাসে আমাদের অপর একটি বড় দায়িত্ব হচ্ছে কোরআন তিলাওয়াত করা। কেননা রমজান হচ্ছে কোরআনের বসন্ত। এই মাসে যত সম্ভব আমাদের উচিত হবে বেশী করে কোরআন তেলাওয়াত করা। আর এর পাশাপাশি কোরআনকে বুঝতে হবে এবং তার উপর আমলও করতে হবে। তাহলে আমরা দুনিয়া ও আখিরাতে সৌভাগ্যবান হব।

 

মন্তব্য

বইপরিচিতি  :
 ভিডিও সংবাদ:
অন্যান্যলিংক :
আমাদের সম্পর্কে

মন্তব্য