خبرگزاری شبستان

پنج شنبه ۲۸ تیر ۱۳۹۷

الخميس ٧ ذو القعدة ١٤٣٩

Thursday, July 19, 2018

বিজ্ঞাপন হার

প্রতি নামাযের পর ইমাম মাহদীর (আ.) আবির্ভাবের জন্য দোয়া

মাহদাভিয়্যাত বিভাগ: ইমাম মাহদী (আ.) ইমামতিধারার সর্বশেষ মাসুম ইমাম। যিনি আল্লাহর পক্ষ থেকে শেষ জামানায় আবির্ভূত হবেন এবং সারা বিশ্বে ন্যায় ও ইনসাফের হুকুমত প্রতিষ্ঠা করবেন। তাই এ ইমামের আবির্ভাবের জন্য আল্লাহর দরবারে দোয়া করা আমাদের প্রত্যেকের ঈমানি দায়িত্ব।

নির্বাচিত সংবাদ

মতামতজরিপ  :   Tuesday, July 03, 2018 নির্বাচিত সংবাদ : 29117

ইমামের দু’টি প্রধান দায়িত্ব
মাহদাভিয়াত বিভাগ: যদি মহানবীর পর ইমামতের ধারা অব্যহত না থাকত তাহলে আজ ইসলামের আর কোন নাম গন্ধও থাকত না। ইমামগণ নবুয়্যতের ধারাকে অব্যহত রেখে ইসলামকে রক্ষা করেছেন আর এর জন্য তারা চরম ত্যাগ স্বীকার করেছেন।

ইমামের দু’টি প্রধান দায়িত্ব

 

মাহদাভিয়াত বিভাগ: যদি মহানবীর পর ইমামতের ধারা অব্যহত না থাকত তাহলে আজ ইসলামের আর কোন নাম গন্ধও থাকত না। ইমামগণ নবুয়্যতের ধারাকে অব্যহত রেখে ইসলামকে রক্ষা করেছেন আর এর জন্য তারা চরম ত্যাগ স্বীকার করেছেন।

শাবিস্তান বার্তা সংস্থার রিপোর্ট: ইসলামী বিপ্লবের মহামান্য রাহবার বলেন, ইমামের কাজ হচ্ছে নবীর কাজের অনুরূপ। নবী যেভাবে মানুষকে আকিদাগত, চিন্তাগত, নৈতিক এবং শিক্ষা ও সাংস্কৃতিক দিক থেকে হেদায়াত করে ইমাম ঠিক তেনমিভাবে।

তিনি বলেন: ইমামের দু’টি অতি মহান ও বড় দায়িত্ব রয়েছে। একটি হচ্ছে ধর্ম প্রচার আরেকটি হচ্ছে সমাজের নেতৃত্ব। আর এই কাজটিই হচ্ছে ইমামের জন্য সব থেকে বেশী গুরুত্বপূর্ণ ও কঠিন কাজ। কেননা এর জন্য কঠিন ও বলিষ্ট পদক্ষেপ দরকার, বিপ্লব দরকার, সংগ্রাম ও সংস্কার দরকার।

ইমাম ও নবীগণের আরেকটি বড় দায়িত্ব হচ্ছে যদি সমাজের ইসলামী রাষ্ট কায়েম থাকে তাহলে তা রক্ষা করা আর না থাকলে তা প্রতিষ্ঠা করার জন্য সংগ্রাম করা।

ইমামত একটি ঐশী পদ অর ইমাম নির্বাচিত হন আল্লাহর পক্ষ থেকে। মহান আল্লাহ পবিত্র কোরআনে বলছেন «إِنِّی جَاعِلُکَ لِلنَّاسِ إِمَاماً»؛ হে ইব্রাহীম! আমি তোমাকে মানব জাতির জন্য ইমাম নিযুক্ত করলাম।

ইমাম কখনো সরাসরি নাম সহকারে পরিচিত হয় আবার কখনো তার নাম বর্ণিত হয় না বরং তার বৈশিষ্ট বর্ণনা করা হয়। যেমন মহান আল্লাহ মহানবীর মাধ্যমে ১২ জন ইমামকে নামসহকারে পরিচয় করিয়ে দিয়েছেন। আবার ইমাম তার নিজের অনুপস্থিতিতে তার প্রতিনিধিদেরকে বৈশিষ্টের মাধ্যমে পরিচয় করিয়েছেন: «فَامَّا مَن کانَ مِنَ الفُقَهاءِ، صَائِناً لِنَفسِهِ حَافِظاً لدینه مُخالِفاً عَلَی هَوَاهُ مُطیعاً لِامرِ مَولَاهُ فَللعَوَام ان یقَلدوُه»؛ আমাদের অবর্তশানে ফকিহদের মধ্যে যারা নফসের অনুসরণ করে না, দ্বীনের প্রতি অবিচল এবং মাওলার নির্দেশের প্রতি আনুগ্যশীল তোমরা এমন ফকিহর তাকলিদ বা অনুসরণ করবে।

মন্তব্য

বইপরিচিতি  :
 ভিডিও সংবাদ:
অন্যান্যলিংক :
আমাদের সম্পর্কে

মন্তব্য