خبرگزاری شبستان

شنبه ۲۴ آذر ۱۳۹۷

السبت ٧ ربيع الثاني ١٤٤٠

Saturday, December 15, 2018

বিজ্ঞাপন হার

ইরাকের রাষ্ট্রদূতকে ইরানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে তলব

ইরাকের দক্ষিণাঞ্চলীয় বসরা শহরের ইরানি কনস্যুলেটে দুর্বৃত্তদের হামলার প্রতিবাদ জানাতে আজ (শনিবার) ভোরে তেহরানে নিযুক্ত ইরাকি রাষ্ট্রদূতকে ইরানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে তলব করা হয়েছে। এ সময় ইরানি কনস্যুলেটের নিরাপত্তা রক্ষার ব্যাপারে ইরাকি নিরাপত্তা কর্মীদের অবহেলার প্রতিবাদ জানানো হয়।

নির্বাচিত সংবাদ

মতামতজরিপ  :   Monday, July 16, 2018 নির্বাচিত সংবাদ : 29167

আহলে বাইতের (আ.) অন্যতম মহীয়সী রমনী
মায়ারেফ বিভাগ: রাসূলের (সা.) পবিত্র আহলে বাইতের (আ.) অন্যতম মহীয়সী নারীর নাম হযরত ফাতেমা মাসুমা (আ.)। তিনি ইমামতিধারার ৭ম ইমাম হযরত মুসা কাজিমের (আ.) কন্যা এবং অষ্টম ইমাম হযরত আলী ইবনে মুসা রেজার (আ.) বোন।

আহলে বাইতের (আ.) অন্যতম মহীয়সী রমনী

 

মায়ারেফ বিভাগ: রাসূলের (সা.) পবিত্র আহলে বাইতের (আ.) অন্যতম মহীয়সী নারীর নাম হযরত ফাতেমা মাসুমা (আ.)। তিনি ইমামতিধারার ৭ম ইমাম হযরত মুসা কাজিমের (আ.) কন্যা এবং অষ্টম ইমাম হযরত আলী ইবনে মুসা রেজার (আ.) বোন।  

শাবিস্তান বার্তা সংস্থার রিপোর্ট: মহীয়সী হযরত ফাতেমা মাসুমা (আ.) হিজরী ১৭৩ সনের পহেলা জিলক্বদ মদীনায় জন্ম গ্রহণ করেন। তিনি রবিউস সানী মাসের ১০ তারিখে ইন্তেকাল করেন। তিনি মদীনা থেকে তার ভাই ইমাম রেজার (আ.) সাথে সাক্ষাতের জন্য ইরানে আসেন এবং ইরানের কোম নগরীতে মাত্র ১৭ দিন অবস্থানের পর ওফাত বরণ করেন। এ শহরেই তাকে সমাধীস্থ করা হয়।

নবী করিম (সা) এর মহান আহলে বাইতের সন্তান হজরত মাসুমা (সা) এর পবিত্র মাজার এখানে থাকার বরকতে কোম শহরের সুখ্যাতি বেড়ে যাবার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। ওই মাজারের পাশেই গড়ে উঠেছে অসংখ্য দ্বীনি মাদ্রাসা ও ইসলাম ও ধর্মতত্ত্ব গবেষণাকেন্দ্র। গড়ে উঠেছে বিশাল মসজিদসহ আরও অনেক ধর্মীয় স্থাপনা। ইসলামের প্রচার ও প্রসারে এইসব প্রতিষ্ঠানের ভূমিকা রয়েছে ব্যাপক। বিশ্বের বিভিন্ন দেশের গবেষকগণ এই কোমের ধর্মতত্ত্ব কেন্দ্রে এসে গবেষণা করছেন আজও।

হিজরি সৌর বর্ষের তের শতকের শুরুর দিকে অর্থাৎ খ্রিষ্টীয় বিশ শতকের প্রাথমিক পর্বে আয়াতুল্লাহ মিরজায়ি কোমি এই ধর্মতত্ত্ব কেন্দ্র প্রতিষ্ঠার পেছনে ব্যাপক ভূমিকা রাখেন। তাঁর পর আয়াতুল্লাহ শেখ আব্দুল করিম হায়েরি ইয়াজদি (রহ) ১৯২২ খ্রিষ্টাব্দে কোমে প্রবেশ করার মধ্য দিয়ে ধর্মতত্ত্ব কেন্দ্রের কাজ প্রাতিষ্ঠানিক রূপ পায় অর্থাৎ একেবারে সুসংগঠিত এবং আনুষ্ঠানিকভাবে ধর্মতত্ত্ব কেন্দ্র প্রতিষ্ঠিত হয়। ইসলামি বিপ্লবের প্রতিষ্ঠাতা আয়াতুল্লাহ রুহুল্লাহ ইমাম খোমেনি (রহ) নিজেও আয়াতুল্লাহ শেখ আব্দুল করিম হায়েরির ছাত্র ছিলেন।

মন্তব্য

বইপরিচিতি  :
 ভিডিও সংবাদ:
অন্যান্যলিংক :
আমাদের সম্পর্কে

মন্তব্য