خبرگزاری شبستان

شنبه ۲۴ آذر ۱۳۹۷

السبت ٧ ربيع الثاني ١٤٤٠

Saturday, December 15, 2018

বিজ্ঞাপন হার

ইরাকের রাষ্ট্রদূতকে ইরানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে তলব

ইরাকের দক্ষিণাঞ্চলীয় বসরা শহরের ইরানি কনস্যুলেটে দুর্বৃত্তদের হামলার প্রতিবাদ জানাতে আজ (শনিবার) ভোরে তেহরানে নিযুক্ত ইরাকি রাষ্ট্রদূতকে ইরানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে তলব করা হয়েছে। এ সময় ইরানি কনস্যুলেটের নিরাপত্তা রক্ষার ব্যাপারে ইরাকি নিরাপত্তা কর্মীদের অবহেলার প্রতিবাদ জানানো হয়।

নির্বাচিত সংবাদ

মতামতজরিপ  :   Friday, July 20, 2018 নির্বাচিত সংবাদ : 29191

ইরান ইউরোপের কাছ বাস্তবসম্মত পদক্ষেপ আশা করে: জারিফ
রাজনীতি বিভাগ: পরমাণু সমঝোতা থেকে আমেরিকা নিজেকে প্রত্যাহার করে নেয়ার পর ইউরোপের সঙ্গে তেহরানের সম্পর্ক জোরদারের আহ্বান জানিয়েছেন ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোহাম্মদ জাওয়াদ জারিফ।

ইরান ইউরোপের কাছ বাস্তবসম্মত পদক্ষেপ আশা করে: জারিফ

 

রাজনীতি বিভাগ: পরমাণু সমঝোতা থেকে আমেরিকা নিজেকে প্রত্যাহার করে নেয়ার পর ইউরোপের সঙ্গে তেহরানের সম্পর্ক জোরদারের আহ্বান জানিয়েছেন ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোহাম্মদ জাওয়াদ জারিফ।

তিনি বলেন, "আমরা ইউরোপের কাছ থেকে কেবল রাজনৈতিক প্রতিশ্রুতি নয় বরং তাদের কাছ থেকে বাস্তবসম্মত পদক্ষেপ প্রত্যাশা করছি।" ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী আরো বলেছেন, ইউরোপকে কেবল মুখের কথায় কিংবা বিবৃতি প্রকাশ করার মধ্যে সীমাবদ্ধ থাকলে চলবে না। বরং ইরানের ব্যাংকিং, বিনিয়োগ, জ্বালানি, যোগাযোগ এবং ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প বিকাশে ইউরোপকে কার্যকর পদক্ষেপ নিতে হবে। ইউরো নিউজকে দেয়া সাক্ষাতকারে জাওয়াদ জারিফ এসব কথা বলেন।

আমেরিকা ছয় জাতিগোষ্ঠীর সঙ্গে ইরানের স্বাক্ষরিত পরমাণু সমঝোতা থেকে বেরিয়ে যাওয়ার পর ইউরোপীয় দেশগুলো এই চুক্তি টিকিয়ে রাখার জন্য ব্যাপক চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। একই সঙ্গে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পও ইউরোপকে হুমকি দিয়েছে, তারা যদি ইরানের সঙ্গে ব্যবসায়ীক সম্পর্ক বজায় রাখে তাহলে তাদেরকেও মার্কিন শাস্তি ও নিষেধাজ্ঞার সম্মুখীন হতে হবে। এই হুমকির কারণে পরমাণু সমঝোতা টিকিয়ে রাখার জন্য ইউরোপ তাদের প্রতিশ্রুতিতে আদৌ অটল থাকতে পারবে কিনা তা নিয়ে সন্দেহ তৈরি হয়েছে।

ইরান জানিয়ে দিয়েছে,পরমাণু সমঝোতা টিকিয়ে রাখতে হলে ইউরোপকে অবশ্যই ইরানের সঙ্গে ব্যাংকিং লেনদেন চালু করা, ইরানে উপস্থিত ইউরোপীয় কোম্পানিগুলোর পুঁজি বিনিয়োগ এবং মার্কিন নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে ইরানের কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সঙ্গে ইউরোপীয় সরকারগুলোর সরাসরি অর্থ লেনদেনের পদক্ষেপ নিতে হবে। পরমাণু সমঝোতা টিকিয়ে রাখতে হলে এর কোনো বিকল্প পথ ইউরোপের নেই। আমেরিকা পরমাণু সমঝোতা থেকে বেরিয়ে যাওয়ার পর এখন চুক্তি টিকিয়ে রাখার নিশ্চয়তা ইউরোপকেই দিতে হবে। আর যদি ইউরোপ সে নিশ্চয়তা দিতে না পারে তাহলে পরমাণু সমঝোতারও আর কোনো অর্থ থাকে না।

ইরানের স্ট্র্যাটেজিক ফরেন রিলেশনস কাউন্সিলের চেয়ারম্যান ও সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. কামাল খাররাজি বলেছেন, "আমেরিকা পরমাণু সমঝোতা থেকে বেরিয়ে যাওয়ায় চুক্তির সঙ্গে সংশ্লিষ্ট অন্য দেশগুলোর উচিত ইরানের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয়ার ক্ষেত্রে ভূমিকা রাখা। এর অন্যথায় পরমাণু সমঝোতা টিকিয়ে রাখার কোনো মানে হয়না।"

বিশ্লেষকরা বলছেন, ইরানের কর্মকর্তাদের এসব বক্তব্যের অর্থ দাঁড়াচ্ছে পরমাণু সমঝোতা টিকিয়ে রাখতে হলে ইউরোপকে কেবল মুখে নয় বরং কার্যকর পদক্ষেপ নিতে হবে। অর্থাৎ ইরানের দাবিগুলো মেনে নিয়ে আমেরিকার একতরফা নিষেধাজ্ঞা মোকাবেলায় ইউরোপকে বলিষ্ঠ পদক্ষেপ নিতে হবে।

মন্তব্য

বইপরিচিতি  :
 ভিডিও সংবাদ:
অন্যান্যলিংক :
আমাদের সম্পর্কে

মন্তব্য