خبرگزاری شبستان

دوشنبه ۲۹ بهمن ۱۳۹۷

الاثنين ١٣ جمادى الثانية ١٤٤٠

Monday, February 18, 2019

বিজ্ঞাপন হার

ইরাকের রাষ্ট্রদূতকে ইরানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে তলব

ইরাকের দক্ষিণাঞ্চলীয় বসরা শহরের ইরানি কনস্যুলেটে দুর্বৃত্তদের হামলার প্রতিবাদ জানাতে আজ (শনিবার) ভোরে তেহরানে নিযুক্ত ইরাকি রাষ্ট্রদূতকে ইরানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে তলব করা হয়েছে। এ সময় ইরানি কনস্যুলেটের নিরাপত্তা রক্ষার ব্যাপারে ইরাকি নিরাপত্তা কর্মীদের অবহেলার প্রতিবাদ জানানো হয়।

নির্বাচিত সংবাদ

মতামতজরিপ  :   Monday, July 30, 2018 নির্বাচিত সংবাদ : 29259

অসমে জাতীয় নাগরিকপঞ্জি থেকে বাদ পড়েছে ৪০ লাখ মুসলিম!
ভারতের বিজেপিশাসিত অসমে জাতীয় নাগরিকপঞ্জিতে (এনআরসি) ৪০ লাখ লোকের নাম নথিভুক্ত হয়নি। এনআরসিতে নাম নথিভুক্ত করার জন্য তিন কোটি ২৯ লাখ ৯১ হাজার ৩৮৪ জন আবেদন করেছিলেন। এদের মধ্যে দুই কোটি ৮৯ লাখ ৮৩ হাজার ৬৭৭ জনের নাম তালিকায় স্থান পেয়েছে।

অসমে জাতীয় নাগরিকপঞ্জি থেকে বাদ পড়েছে ৪০ লাখ মুসলিম!

ভারতের বিজেপিশাসিত অসমে জাতীয় নাগরিকপঞ্জিতে (এনআরসি) ৪০ লাখ লোকের নাম নথিভুক্ত হয়নি। এনআরসিতে নাম নথিভুক্ত করার জন্য তিন কোটি ২৯ লাখ ৯১ হাজার ৩৮৪ জন আবেদন করেছিলেন। এদের মধ্যে দুই কোটি ৮৯ লাখ ৮৩ হাজার ৬৭৭ জনের নাম তালিকায় স্থান পেয়েছে।

এনআরসির সমন্বয়ক বলেছেন, এটা শুধুমাত্র চূড়ান্ত খসড়া, চূড়ান্ত তালিকা নয়। যাদের নাম প্রকাশিত হয়নি, তারা অভিযোগ জানানো বা সংশোধনের আবেদন জানাতে পারবেন।

এনআরসি খসড়া তালিকা প্রকাশকে কেন্দ্র গোলযোগের আশঙ্কায় অসমের বরপেটা, ডিমা হাছাও, সোনিতপুর, করিমগঞ্জ, গোলাঘাট, ধুবড়ীসহ ৭ জেলায় ১৪৪ ধারা জারি করা হয়েছে। অসম ও প্রতিবেশী রাজ্যগুলোতে সতর্কতামূলক পদক্ষেপ হিসেবে আধাসামরিক বাহিনীর ২২ হাজার জওয়ানকে পাঠানো হয়েছে। রাজ্য পুলিশকে চূড়ান্ত সতর্কবার্তা দেয়াসহ সরকারি কর্মীদের ছুটি বাতিল করা হয়েছে।

কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিং বলেছেন, ‘আজ অসমে এনআরসি’র খসড়া তালিকা প্রকাশ হয়েছে। সকলেই জানেন এটা চূড়ান্ত তালিকা নয়, যেকোনো ব্যক্তির অভিযোগ ও দাবি জানানোর সুযোগ দেয়া হবে। আইনে এর সুযোগ রয়েছে। যেকোনো ব্যক্তি শুনানির সম্পূর্ণ সুযোগ পাবেন। এরপরেই চূড়ান্ত তালিকা প্রকাশ হবে। কিছু মানুষ ভীতির পরিবেশ সৃষ্টি করার চেষ্টা চালাচ্ছে। আমি সকলকে আশ্বস্ত করতে চাই যে, কোনোপ্রকার ভয় বা আশঙ্কার কোনো প্রয়োজন নেই। এনআরসি প্রক্রিয়া সম্পূর্ণ নিরপেক্ষতার সঙ্গে করা হয়েছে। হতে পারে কিছু মানুষ প্রয়োজনীয় নথি দিতে পারেননি। এজন্য তাদেরকে দাবি ও অভিযোগ জানানোর পূর্ণ সুযোগ দেয়া হবে।’

এ প্রসঙ্গে অসমের হাইলাকান্দির বিশিষ্ট সমাজকর্মী আব্দুল মান্নান লস্কর আজ (সোমবার) রেডিও তেহরানকে বলেন, ‘এনআরসি’র চূড়ান্ত খসড়া তালিকা থেকে ৪০ লাখ ৭ হাজার ৭০৭ জনের নাম বাদ পড়েছে। অনেক ক্ষেত্রে দেখা যাচ্ছে একই পরিবারের মধ্য থেকে একজন, দু’জন অথবা তিন জনের নাম নেই। এমনও হয়েছে যে বাবা মায়ের নাম আছে কিন্তু সন্তানের নাম নেই। একই নথি জমা দেয়া সত্ত্বেও একজনের নাম তালিকভুক্ত অথচ আরেকজনের নাম তালিকার বাইরে! ওই সমস্যার জন্য আমি এনআরসি কর্তৃপক্ষের গাফিলিতিকেই দায়ী করছি। যারা বাদ গেছেন, তাদের জন্য অবশ্যই আবেদনের সুযোগ আছে, কিন্তু আমার প্রশ হল, কেন কেন এই হয়রানি, কেন এই ঝামেলা ও বাড়তি বোঝা প্রকৃত ভারতীয় নাগরিকদের উপরে চাপিয়ে দেয়া হয়েছে? আমরা রাজ্যের ৩৩ জেলার তথ্য বিশ্লেষণ করে বিশেষজ্ঞদের সঙ্গে আলোচনা করে পরবর্তী পদক্ষেপ ঠিক করব।’

এদিকে, এনআরসি তালিকায় ৪০ লাখ লোকের নাম বাদ যাওয়া প্রসঙ্গে আজ সংসদের উচ্চকক্ষ রাজ্যসভায় কংগ্রেস, সমাজবাদী পার্টি ও তৃণমূলের এমপি’রা প্রতিবাদ জানান। ওই ঘটনায় রাজ্যসভার অধিবেশন প্রথমে দুপুর ১২ টা এবং পরে বেলা ২টা পর্যন্ত মুলতুবি ঘোষণা করতে হয়।

আজ সকালে রাজ্যসভার অধিবেশন শুরু হলে পশ্চিমবঙ্গের তৃণমূল এমপিরা এনআরসি নিয়ে আলোচনার দাবি জানান। নোটিশ দেয়া হয়নি এজন্য তা আলোচনা করা যাবে না বলে রাজ্যসভার চেয়ারম্যান জানান। তিনি বলেন, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী হাউসে আছেন তিনি এ নিয়ে বিবৃতি দেবেন। চেয়ারম্যানের কথায় সন্তুষ্ট না হয়ে তৃণমূল এমপিরা ওয়েলে নেমে বিক্ষোভ প্রদর্শন করেন। ওই ঘটনায় চেয়ারম্যানকে বেলা ১২টা পর্যন্ত অধিবেশনের কাজকর্ম মুলতুবি ঘোষণা করতে হয়। পরে অধিবেশনের কাজ শুরু হলেও পরিস্থিতি পরিবর্তন না হওয়ায় পুনরায় বেলা ২টা পর্যন্ত অধিবেশন মুলতুবি হয়ে যায়।

আজ লোকসভায় তৃণমূল এমপি সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, ‘যেসব লোকের নাম এনআরসি তালিকায় নেই, তারা এখন কোথায় যাবেন? এ ব্যাপারে সরকারকে জরুরি পদক্ষেপ নিতে হবে যাতে তারা সুবিচার পায়।’ কেবল অসমেই কেন ওই পদক্ষেপ নেয়া হল আজ সে প্রশ্নও উত্থাপন করেন সুদীপ বাবু।

সংসদে কংগ্রেসের সিনিয়র এমপি মল্লিকার্জুন খাড়গে বলেন, ‘৪০ লাখ মানুষের অধিকারে বিষয়। হাউসে এ নিয়ে আলাদাভাবে আলোচনা চাই।’ কিছু মানুষের নাম ইচ্ছাকৃত ভাবে বাদ দেয়া হয়েছে এবং এরফলে বিভাজন সৃষ্টি হচ্ছে বলেও শ্রী খাড়গে অভিযোগ করেন।

সিপিএমের এমপি মুহাম্মদ সেলিম বলেন, ‘ধর্মের ভিত্তিতে রাজনীতি করা হচ্ছে। আমাদের নাগরিকত্বের প্রশ্ন, মানবাধিকার ঝুঁকির মধ্যে পড়েছে।’

আরজেডি এমপি জে পি যাদব বলেন, ‘৪০ লাখ নাগরিকের অধিকারের প্রশ্ন। এরফলে অসমে উত্তেজনা সৃষ্টি হয়েছে। ৫০ বছর ধরে বাস করে আসা লোকেদের নাগরিকত্বের ওপরে হামলা হওয়া উচিত নয়।’

তৃণমূল এমপি সুখেন্দু শেখর রায়ের দাবি, কেন্দ্রীয় সরকার ইচ্ছাকৃতভাবে কমপক্ষে ৪০ লাখ ধর্মীয় ও ভাষাগত সংখ্যালঘুদের নাম এনআরসি থেকে বাদ দিয়েছে। এরফলে অসম সংলগ্ন অন্য রাজ্যগুলোতে জনবিন্যাসের ওপরে গুরুতর প্রভাব পড়বে। তিনি এ নিয়ে প্রধানমন্ত্রী ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর বিবৃতি দাবি করেন।

লোকসভায় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিং তার বিবৃতিতে বলেন, ‘সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশ সব কিছু হচ্ছে। যে তালিকা প্রকাশ হয়েছে সেটাই শেষ নয়। সবাই তার নিজ নিজ বক্তব্য তুলে ধরতে পারবেন এজন্য ২/৩ মাস সময় দেয়া হবে।’

আজ পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় রাজ্য সচিবালয় নবান্নে ওই ঘটনায় গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করে বলেন, ‘অসমে ১৫ কোম্পানি বাড়তি বাহিনী দিয়ে বুলডোজ করা হবে না তো? সেখানকার সমস্ত যোগাযোগ, ইন্টারনেট বন্ধ থাকায় সন্দেহ বাড়ছে। আধার কার্ড আছে, তবু তালিকায় নাম নেই। বৈধ তথ্য থাকা সত্ত্বেও অনেকের নাম না ওঠায় তারা বঞ্চিত হয়েছে।’ তিনি এ ব্যাপারে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলবেন বলেও জানান।

 

 

বিশ্লেষণও নোট :
|
|
|

মন্তব্য

বইপরিচিতি  :
 ভিডিও সংবাদ:
অন্যান্যলিংক :
আমাদের সম্পর্কে

মন্তব্য