خبرگزاری شبستان

جمعه ۶ اردیبهشت ۱۳۹۸

الجمعة ٢١ شعبان ١٤٤٠

Friday, April 26, 2019

বিজ্ঞাপন হার

ইরাকের রাষ্ট্রদূতকে ইরানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে তলব

ইরাকের দক্ষিণাঞ্চলীয় বসরা শহরের ইরানি কনস্যুলেটে দুর্বৃত্তদের হামলার প্রতিবাদ জানাতে আজ (শনিবার) ভোরে তেহরানে নিযুক্ত ইরাকি রাষ্ট্রদূতকে ইরানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে তলব করা হয়েছে। এ সময় ইরানি কনস্যুলেটের নিরাপত্তা রক্ষার ব্যাপারে ইরাকি নিরাপত্তা কর্মীদের অবহেলার প্রতিবাদ জানানো হয়।

নির্বাচিত সংবাদ

মতামতজরিপ  :   Monday, August 6, 2018 নির্বাচিত সংবাদ : 29305

ইমাম রেজার (আ.) দৃষ্টিতে ইমাম পরিচিতির গুরুত্ব
মায়ারেফ বিভাগ: আল্লাহ তায়ালা এ পৃথিবীর মানুষকে হেদায়েতের উদ্দেশ্যে যুগে যুগে নবী ও রাসূলগণকে পাঠিয়েছেন। তারা নানাবিধ বাধা বিপত্তিকে উপেক্ষা করে মানব জাতিকে দিকনির্দেশনা দান করেছেন। আর হযরত মুহাম্মাদের (সা.) মাধ্যমে নবুয়্যাতের ধারার পরিসমাপ্তি ঘটে এবং আল্লাহর নির্দেশে ইমামতির ধারার সূচনা হয়।

ইমাম রেজার (আ.) দৃষ্টিতে ইমাম পরিচিতির গুরুত্ব

মায়ারেফ বিভাগ: আল্লাহ তায়ালা এ পৃথিবীর মানুষকে হেদায়েতের উদ্দেশ্যে যুগে যুগে নবী ও রাসূলগণকে পাঠিয়েছেন। তারা নানাবিধ বাধা বিপত্তিকে উপেক্ষা করে মানব জাতিকে দিকনির্দেশনা দান করেছেন। আর হযরত মুহাম্মাদের (সা.) মাধ্যমে নবুয়্যাতের ধারার পরিসমাপ্তি ঘটে এবং আল্লাহর নির্দেশে ইমামতির ধারার সূচনা হয়।

শাবিস্তান বার্তা সংস্থার রিপোর্ট: ইমাম পরিচিতির গুরুত্ব সম্পর্কে মহানবী থেকে শুরু করে সকল ইমামগণই বলেছেন, তার মধ্যে ইমাম রেজা(আ.) বিশেষভাবে এই বিষয়ের উপর ইঙ্গিত করেছেন।

ইমাম রেজা(আ.) বলেছেন,

ইমামতের গুরুত্ব ও মর্যাদা এত বেশী যে তা কারও পক্ষে উপলব্ধি করা সম্ভভ নয়। কেউ ইমামকে নির্বাচন করতে পারে না। ইমামতের পদ এমনই একটি পড় যা নবীগণের মত আল্লাহর পক্ষ থেকে নির্ধারিত হয়। যেভাবে মহান আল্লাহ পবিত্র কোরআনে বলেছেন: আমি তোমাদের জন্য ইমাম নির্ধারণ করেছি।

সূরা বাকারাহ''র ১২৪তম আয়াতে আল্লাহ রাব্বুল আলামিন বলেছেন-

وَإِذِ ابْتَلَى إِبْرَاهِيمَ رَبُّهُ بِكَلِمَاتٍ فَأَتَمَّهُنَّ قَالَ إِنِّي جَاعِلُكَ لِلنَّاسِ إِمَامًا قَالَ وَمِنْ ذُرِّيَّتِي قَالَ لَا يَنَالُ عَهْدِي الظَّالِمِينَ

 

যখন ইব্রাহীমকে তাঁর পালনকর্তা কয়েকটি বিষয়ে পরীক্ষা করলেন, অতঃপর তিনি তা পূর্ণ করে দিলেন, তখন পালনকর্তা বললেন, আমি তোমাকে মানবজাতির নেতা করব। তিনি বললেন, হে আল্লাহ! আপনি আমার বংশধরদের মধ্য থেকেও (ইমাম) নিযুক্ত করুন। তিনি বললেন, আমার অঙ্গীকার অত্যাচারীদের পর্যন্ত পৌঁছাবে না।

হযরত ইব্রাহীম (আ.) আল্লাহর কাছে তার বংশধরদের জন্যেও ইমামতের মর্যাদা দানের প্রার্থনা করেন৷ আল্লাহপাক তার এই প্রার্থনার জবাবে বললেন, ইমামতের এই মর্যাদা বংশানুক্রমিক নয় বরং যার যোগ্যতা আছে সেই এ মর্যাদার অধিকারী হতে পারবে।

রাসূলের দায়িত্ব হলো- আল্লাহর বাণী ও বিধি-বিধান পৌঁছে দেয়া এবং জনগণকে ভালো কাজের সুসংবাদ ও মন্দ কাজের ব্যাপারে সতর্ক করে দেয়া। অপরপক্ষে ইমামের দায়িত্ব হলো সমাজে ওই বিধি-বিধান বাস্তবায়ন করা ও সামাজিক ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠা করা।

সূরা বাকারার এ আয়াতে স্পষ্টভাবে বলে দেয়া হয়েছে যে, ইমামত আল্লাহর অঙ্গীকার ও আমানত, যা জালিম, অন্যায়কারী ও গুনাহগার ব্যক্তিরা পাবে না। এ আয়াত থেকে বুঝা যায়, যারা জীবনে গুণাহ করেছে তারা ইমামতের দায়িত্ব পেতে পারে না।

মন্তব্য

বইপরিচিতি  :
 ভিডিও সংবাদ:
অন্যান্যলিংক :
আমাদের সম্পর্কে

মন্তব্য