خبرگزاری شبستان

پنج شنبه ۲ اسفند ۱۳۹۷

الخميس ١٦ جمادى الثانية ١٤٤٠

Thursday, February 21, 2019

বিজ্ঞাপন হার

ইরাকের রাষ্ট্রদূতকে ইরানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে তলব

ইরাকের দক্ষিণাঞ্চলীয় বসরা শহরের ইরানি কনস্যুলেটে দুর্বৃত্তদের হামলার প্রতিবাদ জানাতে আজ (শনিবার) ভোরে তেহরানে নিযুক্ত ইরাকি রাষ্ট্রদূতকে ইরানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে তলব করা হয়েছে। এ সময় ইরানি কনস্যুলেটের নিরাপত্তা রক্ষার ব্যাপারে ইরাকি নিরাপত্তা কর্মীদের অবহেলার প্রতিবাদ জানানো হয়।

নির্বাচিত সংবাদ

মতামতজরিপ  :   Monday, August 13, 2018 নির্বাচিত সংবাদ : 29361

পহেলা জিলহজ্ব কোন্ দিন?
মায়ারেফ বিভাগ: আরবী মাসের পহেলা জিলহজ্ব হচ্ছে আমিরুল মু'মিনিন আলী (আ.) ও খাতুনে জান্নাত ফাতেমা যাহরার (আ.) পবিত্র বিবাহ দিবস। এ দিন মহান আল্লাহর ইচ্ছায় রাসূলের (সা.) তত্বাবধানে তাদের মধ্যে আকদ সম্পন্ন হয়।

পহেলা জিলহজ্ব কোন্ দিন?

 

মায়ারেফ বিভাগ: আরবী মাসের পহেলা জিলহজ্ব হচ্ছে আমিরুল মু'মিনিন আলী (আ.) ও খাতুনে জান্নাত ফাতেমা যাহরার (আ.) পবিত্র বিবাহ দিবস। এ দিন মহান আল্লাহর ইচ্ছায় রাসূলের (সা.) তত্বাবধানে তাদের মধ্যে আকদ সম্পন্ন হয়।

শাবিস্তান বার্তা সংস্থার রিপোর্ট: ইতিহাসের সাক্ষ অনুযায়ী অনেক নামিদামি সাহাবিরা যথাক্রমে আবু বকর, উমর এবং আরও বিশিষ্ট সাহাবিবর্গ রাসূলের (সা.) নিকট এসে নবী নন্দিনী ফাতেমা যাহরার (আ.) সাথে বিবাহ বন্ধনের আগ্রহ প্রকাশ করেন। কিন্তু রাসূল (সা.) তাদের প্রত্যেকের প্রস্তাবের জবাবে বলেন যে, আমি ফাতেমার বিবাহের বিষয়ে আল্লাহর ইচ্ছা ও আদেশের অপেক্ষায় রয়েছি। এক্ষেত্রে আল্লাহর ইচ্ছা এবং ফাতেমা যাহরার (আ.) সম্মতিই চুড়ান্ত ফায়সালা করবে। 

বিশিষ্ট সুন্নী মনীষী ইয়াকুবি এ প্রসঙ্গে বর্ণনা করেন যে, আনসার ও মুহাজিরদের মধ্যে অনেক খ্যাতনামা সাহাবি রাসূলের (সা.) নিকট এসে তার প্রিয়তম কন্যার সাথে বিবাহের প্রস্তাব দেন। কিন্তু রাসূল (সা.) তাদের উক্ত প্রস্তাবকে ফিরিয়ে দেন এবং বলেন যে, ফাতেমার বিবাহের বিষয়টি আল্লাহর উপর ন্যস্ত।

কিন্তু আমিরুল মু'মিনিন আলী (আ.) যখন ফাতেমার (আ.) প্রস্তাব নিয়ে রাসূলের (সা.) খেদমতে হাজির হন, তখন রাসূল (সা.) তাকে বলেন যে, তোমার পূর্বে কোরাইশ গোত্রের অনেক খ্যাতনামা ব্যক্তি একই প্রস্তাব নিয়ে আমার কাছে এসেছে। তবে আমি তাদের সে প্রস্তাবে সম্মতি দেয় নি। এখন আমি তোমার প্রস্তাবটি ফাতেমার নিকট নিয়ে যাবে যদি সে সম্মত থাকে এবং আল্লাহর ইচ্ছা যদি তাতে থাকে, তবে বিবাহ সম্পন্ন হবে। অবশেষে রাসূল (সা.) যখন ফাতেমা যাহরার (আ.) নিকট এ প্রস্তাব নিয়ে যান তখন তিনি তাতে সম্মতি জ্ঞাপন করেন এবং হিজরী দ্বিতীয় বর্ষের এ দিন তথা ১লা জিলহজ্ব আমিরুল মু'মিনিন আলী (আ.) ও খাতুনে জান্নাত ফাতেমা যাহরার (আ.) মধ্যে পবিত্র বিবাহ সম্পন্ন হয়।

মন্তব্য

বইপরিচিতি  :
 ভিডিও সংবাদ:
অন্যান্যলিংক :
আমাদের সম্পর্কে

মন্তব্য